স্বাধীনতার ইতিহাসে মুক্তিযুদ্ধের সাড়া জাগানো ১০ ছবি ঘরে বসে দেখতে পারেন !

0
16

বাংলাদেশের মহান  মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার ইতিহাস নিয়ে এ যাবত বহু চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছে। যে চলচ্চিত্র দেখলে কিছুটা হলেও মুক্তি যুদ্ধ ও স্বাধীনতার ইতিহাস সম্পর্কে ধারণা পাবেন। তাই  স্বাধীনতা দিবসে ঘরে বসেই দেখতে পারেন মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে নির্মিত সাড়া জাগানো দশটি চলচ্চিত্র।

ওরা এগারো জন: এটিই মুক্তিযুদ্ধের ওপর নির্মিত বাংলাদেশের প্রথম এবং সবচেয়ে সাড়া জাগানো ছবি। ১৯৭২ সালে এই ছবিটি  প্রয়াত চাষী নজরুল ইসলাম নির্মাণ করেছিলেন। ৭ মার্চে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেওয়া ঐতিহাসিক ভাষনের কিছু অংশ দেখানো হয়েছিল এতে। ছবির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন রাজ্জাক, শাবানা, নূতন, খসরু, সৈয়দ হাসান ইমাম ও খলিলউল্লাহ খানসহ অনেকে।

আলোর মিছিল:  ১৯৭৪ সালে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক এই ছবিটি মুক্তি পায়। এটি পরিচালনা করেন বাংলাদেশের বিখ্যাত চলচ্চিত্র পরিচালক নারায়ণ ঘোষ মিতা। ছবিটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন ফারুক, ববিতা, রাজ্জাক ও সুজাতা।

অরুণোদয়ের অগ্নিসাক্ষী: বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের উপর নির্মিত এই চলচ্চিত্রটি নির্মাণ করেছিলেন বিখ্যাত পরিচালক সুভাষ দত্ত। ছবিটির তিনটি প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন ববিতা, নায়ক উজ্জল ও আনোয়ার হোসেন। বিষয়বস্তুগত দিক থেকে এই ছবিটিকে সে সময় একেবারেই অন্যরকম বলে মন্তব্য করেছিলেন বুদ্ধিজীবীরা।

হাঙ্গর নদীর গ্রেনেড:  চাষী নজরুল ইসলাম অমর সৃষ্টি এটি। প্রখ্যাত লেখক সেলিনা হোসেনের রচিত মুক্তিযুদ্ধের গল্প ‘হাঙ্গর নদীর গ্রেনেড’ অবলম্বনে ১৯৯৭ সালে একই নামে ছবিটি নির্মাণ করেন চাষী নজরুল ইসলাম।  একজন সন্তানহারা মায়ের গল্প নিয়েই ছবিটি। যে চরিত্রটি করেছিলেন চিত্রনায়িকা সুচরিতা। এছাড়া ছবির বিভিন্ন চরিত্রে আরও আছেন সোহেল রানা, অরুনা বিশ্বাস, অন্তরা ও ইমরান।

আগুনের পরশমণি: ১৯৯৪ সালে এই ছবিটি নির্মিত হয় প্রয়াত কথাসাহিত্যিক, নাটক ও চলচ্চিত্র নির্মাতা হুমায়ূন আহমেদের হাতে। সরকারি অনুদানে তৈরি মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক এ ছবিটি আটটি বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করে। এর প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেন আসাদুজ্জামান নূর। আরো ছিলেন বিপাশা হায়াত, আবুল হায়াত, ডলি জহুর ও হুমায়ূন কন্যা শিলা আহমেদ।

মুক্তির গান: প্রয়াত চলচ্চিত্র নির্মাতা তারেক মাসুদ এবং তার স্ত্রী ক্যাথরিন মাসুদ পরিচালিত মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক বাংলা প্রামাণ্য চিত্র এটি। ছবিটি মুক্তি পায় ১৯৯৫ সালে। এটি দক্ষিণ এশিয়া চলচ্চিত্র পুরস্কারে বিশেষ উল্লেখ পুরস্কার এবং ২০তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে শ্রেষ্ঠ স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র বিভাগে পুরস্কার লাভ করে।

এখনো অনেক রাত: ১৯৯৭ সালে মুক্তি পাওয়া মুক্তিযুদ্ধের এ ছবিটি  পরিচালনা করেন খান আতাউর রহমান। এটি তার পরিচালিত শেষ চলচ্চিত্র। মুক্তিযুদ্ধ এবং মুক্তিযুদ্ধের পরের সময়ের চিত্র তুলে ধরা হয়েছে এই ছবিতে। এর প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন ফারুক, সুচরিতা, আলীরাজ, ববিতা ও পরিচালকের ছেলে কণ্ঠশিল্পী আগুন।

শ্যামল ছায়া: হুমায়ূন আহমেদ পরিচালিত মুক্তিযুদ্ধের দ্বিতীয় ছবি এটি। মুক্তি পেয়েছিল ২০০৩ সালে। এই ছবিতে মুক্তিযোদ্ধা চরিত্রে দেখা গিয়েছিল প্রয়াত কিংবদন্তি অভিনেতা হুমায়ূন ফরীদিকে। আরো ছিলেন নায়ক রিয়াজ, মেহের আফরোজ শাওন, স্বাধীন খসরু, শিমুল, চ্যালেঞ্জার, ফারুক আহমেদ, ডা. এজাজ ও তানিয়া আহমেদ।

জয়যাত্রা: এটি মুক্তি পেয়েছিল ২০০৪ সালে। প্রয়াত চলচ্চিত্র নির্মাতা আমজাদ হোসেনের কাহিনি নিয়ে এই ছবির সংলাপ, চিত্রনাট্য লেখা ও পরিচালনার দায়িত্ব পালন করেন তৌকীর আহমেদ। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধকালীন একদল মানুষের হাসি-কান্না, সুখ-দুঃখ, মৃত্যু ও বেঁচে থাকার সংগ্রামের গল্প আছে এখানে। এর বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন আজিজুল হাকিম, বিপাশা হায়াত, মাহফুজ আহমেদ, হুমায়ূন ফরীদি, তারিক আনাম খান, আবুল হায়াত ও চাঁদনী।

গেরিলা: নাসির উদ্দীন ইউসুফ পরিচালিত এই ছবিটি মুক্তি পায় ২০১১ সালে। মুক্তিযুদ্ধের পটভূমিতে নির্মিত এই ছবিটিতে অভিনয় করেন শতাধিক শিল্পী। প্রধান চরিত্রে ছিলেন জয়া আহসান ও চিত্রনায়ক ফেরদৌস। আরও আছেন এটিএম শামসুজ্জামান, রাইসুল ইসলাম আসাদ, পীযুষ বন্দ্যোপাধ্যায়, শতাব্দী ওয়াদুদ, শম্পা রেজা ও গাজী রাকায়েত।সূত্র:সমকাল

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here